No need pay Electric bill in WB. Now totally free Electricity Bill under 75 unite.

 No need pay Electric bill in WB. Now totally free Electricity Bill under 75 unite.



হাসির আলো প্রকল্পের আওতায় মানুষদেরকে আর কারেন্ট বিল দিতে হবে না



পশ্চিমবঙ্গ সরকার সাধারণ গরিব মানুষের কথা মাথায় রেখে "হাসির আলো" নামে একটি নতুন প্রকল্প শুরু করলেন। এই প্রকল্পের  আওতায় যারা পড়বেন তাদেরকে আর বিদ্যুৎ বিল দিতে হবে না। দীর্ঘ আট বছর ধরে চলছে টানা বিদ্যুৎ পরিষেবার কাজ অর্থাৎ দরিদ্র গরিব শ্রেণীর মানুষকে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার জন্য রাজ্য সরকার অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। রাজ্য সরকারের দীর্ঘ চেষ্টার ফলে আজ পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের প্রত্যন্ত গ্রামে গঞ্জে ঘরে ঘরে প্রায় ৯৯% শতাংশ বিদ্যুৎ পরিষেবা অর্থাৎ বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে সমর্থ হয়েছেন। যার ফলস্বরূপ আজ প্রত্যন্ত গ্রামগুলোতেও সন্ধ্যে হলে দেখা যায় জিকিমিকি করে জ্বলছে বিদ্যুতের আলো। কিন্তু ওরা গরিব, ওরা খেটে খাওয়া মানুষ, ওরা বিদ্যুতের বিল কোথা থেকে জোগাড় করবে? তাই সরকার যতই রাতের জন্য তাদেরকে আলো দিক না কেন বিদ্যুতের বিল বাকি থেকে যায়। বৈদ্যুতিক অফিসে ইলেকট্রিক বিল নামে দিনে দিনে মাসে মাসে বছরের-পর-বছর বাড়তে থাকছে ঋণের বোঝা।


এই অবস্থার কথা চিন্তা করে সাধারন মানুষদের জন্য রাজ্য সরকার নিয়ে এলো "হাসির আলো" নামে এই নতুন প্রকল্প যার আওতায় যে সমস্ত দরিদ্র মানুষ পড়বেন তাদেরকে এখন থেকে আর কোনো বৈদ্যুতিক বিল জমা করতে হবে না অর্থাৎ সম্পূর্ণ ফ্রিতে বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারবেন । আর এই প্রকল্পের জন্য রাজ্য সরকারের তরফ থেকে প্রায় 200 কোটি টাকা বিনিয়োগ করার কথা ঘোষণা করেন ।


সব গরিব মানুষ এই কি এবার বিল দেওয়া থেকে মুক্তি পাবে ? 

তা কিন্তু একেবারেই নয়। যে সমস্ত মানুষদের ত্রৈমাসিক ইলেকট্রিক বিল ৭৫ ইউনিট এর নিচে হবে তাদেরকে লাগবে না আর বিদ্যুতের বিল ।
      সাধারণত  তিন মাস করে ভাগ করে এক বছরের মধ্যে মোট ৪ বার ইলেকট্রিক ডিপার্টমেন্ট থেকে প্রতিটি বাড়িতে বিল পাঠানো হয়। আর এই তিন মাসে মোট 75 ইউনিট এর নিচে বিল হলে দিতে হবে না ।

সুতরাং এখন থেকেই সাধারণ মানুষরা যারা প্রতি তিন মাসে 75 ইউনিটের নিচে বিদ্যুৎ খরচ করেন তারা শান্তি পেতে পারবেন কেননা এখন থেকে আর বিদ্যুৎ বিল দিতে হবে না।


হাসির আলো প্রকল্পের আওতায় আসতে গেলে কি করতে হবে ? 

হাসির আলো এমন একটি প্রকল্প যেখানে আপনি কোন কিছু না করেই এই প্রকল্পের আওতায় চলে আসতে পারবেন । কিভাবে ?
     ইলেকট্রিক অফিসে আপনার মিটারের নাম্বার অনুযায়ী যখন বিল করবে তখন যদি দেখে আপনার নামে সংযুক্ত মিটারে 75 ইউনিটের নীচে কারেন্ট খরচ হয়েছে তখনই আর বিল পাঠানো হবে না । এভাবেই রাজ্যের যত মানুষ আছে এবং তাদের মধ্যে যাদেরই প্রতি তিন মাসে 75 ইউনিটের নিজে বিদ্যুৎ খরচ হবে তাদের উদ্দেশ্য আর এখন থেকে বিল পাঠানো হবে না । আপনি জানতেই পারছেন না কি ভাবে কবে এই হাসির আলো প্রকল্পের আওতায় এলেন । ভাবতে গেলে কতই না মজার ! তাই না ?
গরিব মানুষের উদ্দেশ্য রাজ্য সরকারের এই অভিনব উদ্দ্যোগ গরিব মানুষের জন্য অনেক সহায় হবে বলে মনে করা হচ্ছে ।

কবে থেকে কার্যকরি হবে হাসির আলো প্রকল্প ?

এখন সাধারণ মানুষের মনে এটা আসতে পারে - এই প্রকল্পের সুবিধা কবে থেকে দেওয়া হবে ? এই প্রকল্প কবে থেকে শুরু হবে সে বিষয়ে সরকার থেকে কোনরকম ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি । তবে অনুমান করা হচ্ছে যখনই কোন একটা নতুন প্রকল্প শুরু হয় তখন প্রথম দিকে একটু সময় নেয় , মোটামুটি ২-৩ মাস পর থেকে এই প্রকল্প কার্যকরি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ।

Post a comment

1 Comments